এই সাইটের কোন লেখা কপি করা নিষেধ

ইউটিউবে প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা পাবেন ? (YouTube কত টাকা দেয়)

YouTube ১০০০ ভিউস এ কত টাকা দেয় বা ইউটিউবে কত views এ কত টাকা দেয় দুটো প্রশ্ন আমার জন্য একে রকমের। কারণ, ১০০০ ভিউস হউক বা ১০,০০০ view, ইউটিউবের কিছু নিয়ম বা প্রক্রিয়া রয়েছে যেগুলি অনুসরণ করে YouTube, Google এডসেন্সের মাধ্যমে আমাদের টাকা দেয়। তাই, ইউটিউবে ১০০০ ভিউ তে কত টাকা কামানো যাবে বা আমরা YouTube এ কত ভিউতে কত টাকা আয় করতে পারবো সেটা একমাত্র তখন বুঝতে পারবো যখন YouTube এর এই টাকা দেয়ার প্রক্রিয়া আমরা জানবো। এতে আপনারা একদম পরিষ্কার ভাবে বুঝে যাবেন যে ইউটিউবে কত ভিউস থেকে কত টাকা আপনারা আয় করতে পারবেন।

১০০০ ভিউতে কখনো হয়তো ৫ ডলার কমিয়ে নিতে পারবেন বা কখনো হয়তো ১ ডলারও হবেনা। আবার, হয়তো ৭০০ ভিউতে ৪ থেকে ৫ ডলার হয়ে যেতে পারে কিন্তু আবার, হয়তো ১০,০০০ ভিউতেও ২ ডলার ও কামাতে পারবেননা।

তাই, YouTube এ কত টাকা আয় করা যাবে সেটা একমাত্র YouTube এর টাকা দেয়া প্রক্রিয়ার ওপরে নির্ভর যেগুলির বেপারে আমি বলবো।

ইউটিউবে কত ভিউতে (view) কত টাকা আয় করতে পারবেন ?

আপনারা হয়তো অনেক ভিডিও দেখেছেন বা আর্টিকেল পড়েছেন যেখানে বলা হয়েছে, ১০০০ ভিউ এ ৩ থেকে ৪ ডলার পেয়ে যাবেন। অনেকে হয়তো বলেছে, কম ট্রাফিক বা ভিউতেই অনেক টাকা আমরা ইউটিউবে কমিয়ে নিতে পারবো।

কিন্তু, যদি আপনি নিজের ইউটিউব চ্যানেল বানানোর কথা ভাবছেন, এবং এইটা জানতে চাচ্ছেন যে YouTube থেকে কত টাকা আয় করতে পারবেন, তাহলে এ প্রশ্নোর কোনো সোজা উত্তর নেই।

হে, YouTube অনলাইন টাকা কমানোর অনেক সহজ এবং লাভজনক উপায় যার থেকে অনেকেই মাসে হাজার হাজার ডলার কমিয়ে নিচ্ছেন। এবং আপনিও YouTube কে নিজের ক্যারিয়ার বানিয়ে তার থেকে টাকা আয় করতে পারবেন বা তাকে নিজের বিসনেস (business) হিসাবে নিতে পারবেন।

কিন্তু তার জন্য আপনার কেবল নিজের ভিডিও এবং YouTube ভিডিও SEO র ওপরে ধ্যান দিতে হবে। মন দিয়ে কাম করতে হবে।

কারণ, এতে আপনার অনেক সময় লাগতে পারে। আপনি আস্তে আস্তে যত ভালো ভালো ভিডিও নিজের চ্যানেলে আপলোড দিবেন ততটাই আস্তে আস্তে আপনার ভিডিও গুলিতে ভিউ বাড়তে থাকবে।

এবং, একদিন এমন আসবে যখন আপনার YouTube চ্যানেলে অনেক ভিডিও এবং subscriber হয়ে যাবে এবং আপনি নিজের ভিডিওতে আশা ভিউ দ্বারা টাকা কামানো শুরু করতে পারবেন।

ইউটিউব আপনাকে কত টাকা দিবে ?

১০০০ ভিউ অনেক কম, যদি আপনি ইউটিউবের থেকে টাকা কমানোর কথা ভাবছেন। আমার প্রথম ১০০ ডলারের পেমেন্ট আমি পেয়েছি যখন আমার চ্যানেলে টোটাল ১.৫ লক্ষ ভিউ হয়েছিল। তারপর আমি যখন ক্যালকুলেট (calculate) করে দেখলাম আমি পেলাম যে ১০০০ ভিউ এ আমি প্রায় ১ ডলারের থেকেও কম টাকা কামিয়েছি।

কিন্তু, আমার এক বন্ধু যে, আমার সাথেই ইউটিউবের কাজ শুরু করেছিল, তার ১৫০ ডলার ইনকাম কেবল ১ লক্ষ view তেই হয়ে গেছে। সে, ১০০০ ভিউতে ১.৫ ডলার করে কামিয়েছে। কিন্তু, লক্ষ করার কথা এটাই যে সে আমার থেকেও কম view দিয়ে আমার থেকে বেশি টাকা কামিয়েছে।

তাহলে, আপনারা এইটা ভালোকরে বুঝে নেন যে, ইউটিউবে কত views এ কত টাকা হবে, সেটা স্থায়ী (fixed) নয় এবং কেও এটার একটা নির্ধারিত সংখ্যা বলতে পারবেনা। কেননা, ভিউ (views) এর ওপরে ইউটিউব কোনোদিন টাকা দেয়না। YouTube টাকা দেয় অনেক কারণের (factors) ওপরে চিন্তা করে এবং সেগুলি জানাটা আপনাদের জন্য অনেক জরুরি।

কিন্তু হে, এখনকার দিনে আপনারা প্রায় ১ থেকে ৩ ডলার প্রতি ১০০০ ভিউতে কমানোর সম্ভাবনা আছে যদি আপনি সোজা উত্তর জানতে চান।

ইউটিউবে কতটা ভিউ হলে আপনারা কত টাকা কমিয়ে নিতে পারবেন সেটা সোজাসোজি বলাটাতো সহজ নয়।

কিন্তু হে, যদি ইউটিউবের টাকা দেয়ার প্রক্রিয়াটা বুঝে যান তাহলে হয়তো অনেক কম views এই অনেক টাকা কমানোর জ্ঞান আপনাদের হয়েযাবে। এবং, আপনাদের এটাও পরিষ্কার হয়ে যাবে যে, YouTube থেকে কখন বেশি টাকা ইনকাম হবে এবং কখন কম টাকা কমাবেন।

তাহলে এখন, যদি আপনি পরিষ্কার ভাবে জানতে চাচ্ছেন যে, ইউটিউব কত view তে কত টাকা দেয় ? প্রতি ১০০০ ভিউতে কত টাকা পাবো ? ইউটিউব থেকে কত টাকা আয় করা যাবে ? YouTube কত টাকা দেয় ? তাহলে নিচে ভালো করে পড়ুন ইউটিউবের টাকা দেয়ার প্রক্রিয়া। আপনি সবটাই ভালোকরে জানতে পারবেন।

YouTube আমাদের কিভাবে টাকা দেয় ? (How YouTube pays)

আপনারা যদি জানেননা তাহলে জেনেনিন, YouTube চ্যানেলে ভিডিও আপলোড করার পর টাকা কমানোর জন্য আপনার প্রয়োজন হবে গুগল এডসেন্সের। মানে, যখন আপনার ইউটিউবের চ্যানেলে অনেক ভিডিও হয়ে যাবে তখন আপনার Google ad-sense এর জন্য apply বা register করতে হবে।

এর পর, আপনার YouTube ভিডিও গুলিতে adsense এর দ্বারা কিছু বিজ্ঞাপন দেখানো হবে। এবং, এই বিজ্ঞাপন দেখানোর বদলে Google এডসেন্স আমাদের টাকা দেয় বা ডলার দেয়।

তাহলে, ভালোভাবে দেখলে YouTube আমাদের টাকা দেয়না। আমরা YouTube এ আপলোড করা ভিডিও গুলিতে গুগল এডসেন্সের বিজ্ঞাপন লাগিয়ে বা ব্যবহার করে গুগল এডসেন্সের দ্বারা টাকা আয় করার সুযোগ পাই। এখানে, ইউটিউবের কোনো ধরণের হাত নেই।

কিন্তু, YouTube এবং Ad-sense দুটোই Google এর সার্ভিস বা product এবং দুজনের কাজ আলাদা আলাদা।

YouTube আমাদের তার ওয়েবসাইটে ফ্রীতেই ভিডিও আপলোড করার সুযোগ দেয়। এবং, সেই আপলোড করা ভিডিওগুলিতে ইউটিউবের লক্ষ লক্ষ ভিসিটর্স দ্বারা view পাওয়ারও আমরা সুযোগ পাই।

আর, গুগল এডসেন্স, ভিডিও গুলিতে তার বিজ্ঞাপন (advertisement) লাগিয়ে টাকা কমানোর সুযোগ আমাদের দেয়।

তাই, ইউটিউবের থেকে আপনি কত টাকা কমাবেন সেটা নির্ভর করবে Google adsense এর ওপরে। কারণ, গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপন দেখানোর বদলে আপনাকে টাকা দেবে। এবং, এডসেন্স আপনাকে কত এড ভিউ হলে কত টাকা দেবে বা কি হিসাবে টাকা দেবে সেটা সম্পূর্ণ ভাবে তার ওপর। এখানে, ইউটিউবের করার কিছু নেই।

গুগল এডসেন্স আমাদের কি হিসাবে টাকা দেয় ? কখন কত টাকা দিবে

গুগল এডসেন্স (YouTube) আমাদের বিশেষ করে ৫ টি জিনিসের ওপরে নির্ভর করে টাকা দেয়। এবং, এই জিনিস গুলির জন্যই আপনি ইউটিউবে কত টাকা কমাতে পারবেন সেটা স্থায়ী থাকেনা। এই জিনিস গুলি হলো –

  • ড ভিউ (বিজ্ঞাপন দেখানোর সংখ্যা)
  • CPC কত হচ্ছে 
  • CPM কত হচ্ছে 
  • Traffic country
  • কীওয়ার্ড (Keyword)

এড (বিজ্ঞাপন) ভিউ কতবার হচ্ছে  –

ইউটিউব থেকে আয়, সবচেয়ে আগে নির্ভর করে আপনার ভিডিওতে দেখানো advertisement গুলিতে কতটি এড ভিউ হয়েছে। মানে, ভিডিওতে বিজ্ঞাপন কতবার দেখানো হচ্ছে বা বিজ্ঞাপন দেখানো হোচ্ছে কি না। মনে রাখবেন, খালি ভিডিওতে view হলে কাম চলবেনা। বিজ্ঞাপনে ভিউ হলেহে টাকা কামানো যাবে।

মনে রাখবেন, গুগল এডসেন্স, আপনার ভিডিওতে হওয়া প্রতিটি ভিউতে এডস (ads) দেখায়না। মানে, যদি আপনার কোনো ভিডিওতে ১০ তা মানুষ এসেছে বা ১০ তা ভিউ হয়েছে, তাহলে গুগল এডসেন্স সেই ১০ জনকেই এডস (ads) নাও দেখতে পারে।

হয়তো, এডসেন্স ১০ জনের মধ্যে কেবল ৫ জনকেই ad দেখতে পারে বা হয়তো ১০ জনকেই ads দেখতে পারে। সেটা পুরোপুরি এডসেন্সের ওপরে নির্ভর।

এবং, ভিডিওতে বা ভিসিটর দেড় কম বিজ্ঞাপন দেখানো মানে আপনার টাকা কমানোর সুযোগ কম হবে এবং যাদের ভিডিওতে বেশি বিজ্ঞাপন দেখানো হবে তাদের টাকা কমানোর সুযোগ বেশি। এখানে আপনার করার কিছু নেই।

এটাই কারণ, যার জন্য আপনি হয়তো ১০০০ ভিউতে ১ ডলার কামাচ্ছেন এবং অন্যরা হয়তো ২ থেকে ৫ ডলার কামাচ্ছে। তাদের ভিডিওতে হয়তো এডসেন্স দ্বারা অনেক বার বিজ্ঞাপন দেখানো হচ্ছে এবং আপনার ভিডিও গুলিতে হয়তো অনেক কম সংখ্যায় এড দেখানো হচ্ছে।

ভিডিওতে কম বিজ্ঞাপন দেখানো মানেই আপনার টাকা কমানোর সুযোগ কমে যাওয়া। আর তাই, এই সমস্যার একটি উপায় আমার কাছে আছে।

আপনি যখনই কোনো ভিডিও বানাবেন সেটা মিনিমাম ৫ থেকে ১০ মিনিটের বা তার থেকে বেশি সময়ের বানাবেন। এতে, লোকেরা আপনার ভিডিও অনেক সময় দেখবে, এবং এতে এডসেন্স অনেকবার আপনার ভিডিওতে বিজ্ঞাপন দেখিয়ে দিবে।

বিজ্ঞাপন অনেক বার দেখানো মানেই, আপনার টাকা কমানোর সুযোগ অনেক বেশি বেড়ে যাওয়া। অনেক বার এরম হয়, আমরা ছোট ছোট ভিডিও বানিয়ে ইউটিউবের চ্যানেলে আপলোড করি এবং সেই ভিডিও গুলিতে বিজ্ঞাপন দেখানোই হয়না। কারণ, সেগুলি অনেক ছোট এবং এডসেন্স দ্বারা বিজ্ঞাপন দেখানোর সুযোগ পাওয়া যায়না।

এটাই আসল কারণ যার জন্য অনেকের কম ভিউ (view) হলেও অনেক টাকা কামানো হয়ে যায় এবং অনেকের হাজার হাজার ভিউ হয়েযায় কিন্তু ইনকাম হয়না।

দেখানো বিজ্ঞাপনে কত CPM পাচ্ছেন –

CPM মানে হলো “cost per mille (১০০০ VIEWS)“. বুঝেননাই ? CPM মানে আপনার ইউটিউবের ভিডিওতে প্রতি ১০০০ এড ভিউতে এডসেন্স বা Advertiser রা আপনাকে কত টাকা দিচ্ছে। মনে করবেন, আমি খালি ভিডিও ভিউ হওয়ার কথা বলিনাই। আমি বলেছি, যখন আপনার ভিডিও লোকেরা দেখেন তখন তাদের কতবার ads দেখানো হয়। এবং, এই বিজ্ঞাপন দেখানোর সংখ্যা যখন সব মিলিয়ে ১০০০ ad view হয়ে যাবে তখন তার ওপরে YouTube আপনাকে কত টাকা দিচ্ছে। সেই কথা আমি বলছি।

এই CPM (COST PER ১০০০ VIEWS) সবাইর ক্ষেত্রে আলাদা আলাদা। এবং, CMP অনেক কিছুর ওপরে নির্ভর করে।

  • আপনার ভিডিও দেখা লোকেরা বিজ্ঞাপন পুরো দেখছে কি না।
  • বিজ্ঞাপন খালি দেখছেন না তাতে ক্লিক ও করছেন।
  • বিজ্ঞাপন অল্প দেখেই “SKIP” তো করছেন।
  • দেখানো বিজ্ঞাপনের মূল্য কেমন।
  • ভিডিও এবং তাতে দেখানো বিজ্ঞাপন কোন দেশের লোকেরা দেখছেন।
  • এবং, আরও অনেক কিছুর ওপরে CPM নির্ভর করে।

এবং, এটাই মূল কারণ যার জন্য প্রতি ১০০০ VIEWS এ ইউটিউব আমাদের কত টাকা দিবে সেটা বলাটা কারো জন্যই সম্ভব না। আপনার CMP যতটাই ভালো হবে ১০০০ ভিউতে আপনারা ততটাই বেশি আয় করতে পারবেন।

দেখানো বিজ্ঞাপনে কত CPC পাচ্ছেন –

CPM এর মতোই ইউটিউবের থেকে কতো কমাবেন সেটা নির্ভর করে CPC র ওপরে। CPC মানে হলো “COST PER CLICK”.

মানে, আপনার ভিডিওতে দেখানো বিজ্ঞাপন গুলিতে কতজন ক্লিক করছেন এবং সেই ক্লিক গুলিতে আপনাকে ইউটিউব বা এডসেন্স কত করে দিচ্ছে।

অনেকে, প্রতি AD click এ প্রায় $০.২ থেকে $০.৫ বা তার থেকেও বেশি পান।

যদি আপনি মিনিমাম ০.৩ ডলার করেই প্রতি ad view তে পান আর আপনার টোটাল এড ক্লিক ১০০০ হয় তাহলে আপনার ইনকাম হবে $৩০০. মানে প্রায় ২৫ হাজার টাকা।

আর, যদি আপনি ০.১ করে ক্লিকে পাচ্ছেন তাহলে প্রতি ১০০০ ক্লিকে পাবেন $১০০ (প্রায় ৭০০০ টাকা) .

তাহলে আপনারা হয়তো বুঝতে পারছেন যে, ভিডিও গুলিতে দেখানো বিজ্ঞাপনের ওপরে হওয়া প্রতি ad click এ যত করে টাকা পাবেন তার ওপরেই নির্ভর করে আপনার টোটাল ইনকাম বেশি বা কম হবে।

তাই, ১০০০ এড ভিউ তে কত টাকা হবে সেটা পুরো এটার ওপরে নির্ভর করবে যে আপনার ভিডিওতে দেখানো বিজ্ঞাপনে কত করে ক্লিক হচ্ছে এবং প্রতি ad click এ আপনারা কত করে পাচ্ছেন।

Traffic country – কোন দেশ থেকে ভিউ পাচ্ছেন ?

ইউটিউব (গুগল এডসেন্স) আপনাকে প্রতি ad view তে কত টাকা দেবে সেটা ৭০% নির্ভর করে, আপনি ভিডিওতে কোন দেশের থেকে ভসিটর্স বা ভিউ পাচ্ছেন সেটার ওপরে।

এখানে আপনার বা আমার কিছু করার নেই। হে, যদি কিছু করতে পারেন তাহলে, এইটা চেষ্টা করবেন যাতে আপনার ভিডিও গুলিতে US, CANADA, AUSTRALIA, UK, NEW ZEALAND বা GERMANY থেকে ভিউস বা ট্রাফিক আসে।

কারণ, যেই দেশ গুলি আমি বললাম সেই দেশ গুলির থেকে আশা ভিসিটর্স রা যদি আপনার ADS (বিজ্ঞাপনে) ক্লিক করে তাহলে আপনি অনেক CPC প্রতি ক্লিকে পেয়ে যান। প্রায় $০.২০ থেকে $১ বা তার থেকেও বেশি থাকে। এতে আপনি প্রতি ১০০০ Ad views এ সব থেকে বেশি ডলার কমিয়ে নিতে পারবেন।

এবং, যতটা আমি জানি ভারত, বাংলাদেশ এবং কিছু এশিয়ান দেশগুলিতে এডসেন্স প্রতি এড ক্লিকে অনেক কম টাকা দেয় যে $০.১ থেকে $০.১০ এর ভেতরেই থাকে। এটাই কারণ, যার জন্য বেশিরভাগ ভারতীয় বা অন্য এশিয়ান লোকেদের ইউটিউবের চ্যানেলে কম থেকে কম ইনকাম বা আয় হয়।

কারণ, আমাদের ইউটিউবের চ্যানেলে আশা ৮০% ট্রাফিক বা ভিউ ভারত, বাংলাদেশ, পাকিস্তান বা অন্য কিছু এশিয়ান দেশ থেকে থাকে, এবং এই দেশ গুলির থেকে আমাদের বিজ্ঞাপনে পাওয়া ক্লিকে Google adsense আমাদের অনেক কম CPC দেয়।

তাহলে, সব সময় চেষ্টা করবেন এমন ভিডিও বানানোর যেগুলিতে পুরো দেশ বিদেশ থেকে এবং বিশেষ করে আমি ওপরে বলা দেশ গুলির থেকে আপনি ট্রাফিক বা ভিউস পাবেন। এতে আপনার বিজ্ঞাপনে পাওয়া ক্লিকের বদলে আপনি ভালো CPC পাবেন এবং প্রতি ১০০০ ভিউ বা যতই ভিউ হউক তাতে ভালো ইনকাম আপনার হবে।

ভিডিওর লাভজনক Keyword, টপিক বা বিষয় বাছুন

আপনার বানানো ভিডিওর টপিক, keyword বা বিষয়, ইউটিউব বা এডসেন্সের ইনকাম প্রভাব ফেলতে পারে। মনে রাখবেন, গুগল এডসেন্স যেগুলি বিজ্ঞাপন লোকেদের দেখায় সেগুলির বেশিভাগ আপনার ভিডিওর keyword, টপিক বা বিষয়ের ওপরেই থাকে।

উদাহরণ স্বরূপর, 

আপনি যদি, ওয়েব হোস্টিং এর বিষয়ে কিছু ভিডিও আপলোড করেন, তাহলে সেই ভিডিওতে এডসেন্স বা ইউটিউব হোস্টিং এর সাথে জড়িত বিজ্ঞাপন দেখাবে।

আর মনে রাখবেন, আলাদা আলাদা বিজ্ঞাপনের জন্য আপনাকে এডসেন্স আলাদা আলাদা CPC (cost per click) দেয়।

এখন, যদি আপনি সেগুলি কীওয়ার্ড, বিষয় বা টিপিকে ভিডিও বানান, যেগুলিতে এডসেন্স সাধারনে লো সিপিসি (low cpc) দেয় তাহলে অবশই আপনি বিজ্ঞাপন দ্বারা কম টাকা কমাবেন।

এবং, যদি আপনি কীওয়ার্ড রিসার্চ এর মাধ্যমে ভালো ভালো এবং বেশি CPC পাওয়া কীওয়ার্ড বা টপিক খুঁজে ভিডিও বানান তাহলে তাতে দামি দামি বিজ্ঞাপন দেখানো হবে এবং আপনার প্রীতি ad view / click এ ইনকাম অনেক বেশি হবে। এতে, ইউটিউবে ১০০০ এড ভিউসেই আপনি অনেক টাকা আয় করতে পারবেন।

তাহলে, Google keyword planner টুল ব্যবহার করুন এবং বেশি সার্চ হওয়া এবং বেশি CPC থাকা কীওয়ার্ড বা টপিক খুঁজে ভিডিও বানান। আপনার, আপনার ইউটিউবের ভিডিওগুলিতে দামি বিজ্ঞাপন দেখানো হবে, আপনাকে প্রতি এড ভিউ বা ক্লিকে বেশি cpc দেয়া হবে এবং আপনার ইনকাম বেড়ে যাবে।

শেষে আমরা কি বুঝলাম ? ইউটিউব কত ভিউ এ কত দেয় ?

তাহলে, শেষে, ইউটিউবের থেকে কত টাকা পাবো ? ইউটিউব কত টাকা দেয় ? কত AD VIEW হলে কত টাকা পাবো এবং ১০০০ ভিউতে ইউটিউব কত টাকা দেয় ? এই সব প্রশ্নোর উত্তর একটাই, সেটা হলো – “ইউটিউবের থেকে ইনকাম স্থায়ী নয়“.

অনেকে, YouTube থেকে ১০০০ ভিউ এ ৫ থেকে বেশি ডলার কামাচ্ছেন এবং অনেকের ১ ডলারও হচ্ছেনা। অনেকে ইউটিউবের থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করছেন এবং অনেকেই বছর পর বছর টাকা আয়ের চেষ্টা চলিয়ে যাচ্ছে কিন্তু কিছুই হচ্ছেনা।

তাই, আপনি কত টাকা কমাতে পারবেন সেটা নির্ভর করে ইউটিউবের (গুগল এডসেন্সের) টাকা দেয়ার প্রক্রিয়ার ওপরে, ভিডিও গুলিতে বিজ্ঞাপন দেখানো হচ্ছে কি না, বিজ্ঞাপনে CPC/CPM কত করে হচ্ছে তার ওপরে, কোন দেশের থেকে আপনি ভিউ পাচ্ছেন এবং আপনার ভিডিওর কীওয়ার্ড বা টপিক লাভজনক তো।  এগুলির ওপরে নির্ভর করে ইউটিউব আপনাকে টাকা দেয়।

তাই,  নির্দিষ্ট সংখ্যা বলাটা কারো পক্ষে সম্ভব নয় যে আপনি ইউটিউবের থেকে কত টাকা আয় করবেন। কিন্তু, যদি আপনি রেগুলার মন লাগিয়ে ভালো ভালো ভিডিও বানিয়ে ইউটিউবে আপলোড করেন তাহলে আমি জানি আপনি ভালো একটি পরিমান প্রতি মাসে কমিয়ে নিতে পারবেন।

ভারত, বাংলাদেশ এবং আরো কিছু এশিয়ান দেশে আপনি প্রতি ১০০০ এড ভিউস এ প্রায় ২ ডলার থেকে ৩ ডলারভ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক। কিন্তু এইটা একটা অনুমান মাত্র। ইউটিউবের থেকে ইনকাম সবার ক্ষেত্রে আলাদা এবং অন্য।

রিলেটেড আর্টিকেল…………..

ব্লগার দেড় জন্য গুগল এডসেন্স এর কিছু সেরা বিকল্প

১১ টি লাভজনক ইউটিউব চ্যানেল আইডিয়া – (Best channel topics)

গুগল এডসেন্স কি ?এডসেন্সের জন্য apply কিভাবে করবেন ?দ্রুত গুগল এডসেন্স এপ্রুভাল পাবেন যেভাবে

Comments (No)

Leave a Reply