এই সাইটের কোন লেখা কপি করা নিষেধ

২০১৯ সালের সেরা 2 টি ফ্রি এন্টিভাইরাস। (কম্পিউটার)

সঠিকভাবে এন্টিভাইরাস বা এন্টিম্যালওয়্যার সফটওয়্যার ব্যবহার করলে বিভিন্ন ভাইরাস, ম্যালওয়্যার ও র‍্যানসমওয়্যারের হাত থেকে নিরাপদ থাকা সম্ভব। কম্পিউটার ব্যবহার করেন কিন্ত এন্টিভাইরাস ব্যবহার করেন না এরকম মানুষ বর্তমানে খুবই কম রয়েছে।

চলুন জেনে নিই বর্তমানে সেরা ২ ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যারের নাম, যা থেকে আপনি যেকোনো একটি বেছে নিতে পারেন।  বিশেষ করে উইন্ডোজ ১০ আসার পর এখন আপনি না চাইলেও বাধ্যতামূলকভাবে উইন্ডোজ ডিফেন্ডার বা উইন্ডোজ সিকুরিটি সেন্টার চালু করা থাকবে।

মূূূলত ভাইরাস এবং ম্যালওয়্যার থেকে আমাদের পিসিকে নিরাপদ ও সুরক্ষিত রাখতে আমরা এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকি। সাধারণত এন্টিভাইরাসকে দুই ভাগে ভাগ করা যায়। যথাঃ ফ্রি এন্টিভাইরাস এবং পেইড এন্টিভাইরাস। ফ্রি এন্টিভাইরাসের থেকে পেইড এন্টিভাইরাসে ফিচার বেশি থাকে। তবে আমাদের মতো অধিকাংশ সাধারণ ইউজারদের জন্য ফ্রি এন্টিভাইরাসই যথেষ্ট।

যারা উইন্ডোজ ১০ এর লেটেস্ট ভার্সন ব্যবহার করেন তাদের জন্য আলাদা করে কোনো এন্টিভাইরাস ব্যবহার করার প্রয়োজন হয় নেই। কিন্তু যারা অফিসে কিংবা ব্যবসায় ক্ষেত্রে পিসি ব্যবহার করেন তাদের পেইড এন্টিভাইরাস ব্যবহার করাই শ্রেয়। কারণ ঐ সকল কম্পিউটারগুলোতে কোম্পানির বিভিন্ন সেন্সিটিভ ডাটা থাকে যেগুলো চুরি হয়ে গেলে আর্থিক এবং অনান্য ক্ষতির সম্ভাবনা থাকে।

তবে যারা আগের সংস্করণের উইন্ডোজ ব্যবহার করেন এবং যারা কোন ফ্রি এন্টিভাইরাসটি ব্যবহার করবেন বা সবচেয়ে ভাল এন্টিভাইরাস কোনটি সেটা নিয়ে ভাবছেন তাদের জন্যেই আজকের এই পোষ্ট। আজকের পোষ্টে আমি 2টি সেরা এন্টিভাইরাস নিয়ে আলোচনা করবো। 

1. AVAST Free Antivirus:

ফ্রি এন্টিভাইরাসের কথা বললে সবার আগে যে এন্টিভাইরাস এর নাম আসে সেটি হলো AVAST এন্টিভাইরাস।বিশ্বের অন্যতম সবথেকে জনপ্রিয় ফ্রি এন্টিভাইরাস সফটওয়্যার হচ্ছে অ্যাভাস্ট। বেসিক এন্টিভাইরাসের সেরা প্রটেক্টশন আপনি পাবেন অ্যাভাস্ট থেকে।

এছাড়াও ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে কোম্পানিটি AVG টেকনোলজিকে কিনে নিয়েছে, তাই এখন আপনি AVG এবং AVAST এই দুটি এন্টিভাইরাসের সমন্নিত রূপ পাবেন অ্যাভাস্টেই। 

অ্যাভাস্ট এন্টিভাইরাসের ফ্রি সংষ্করণে আপনি পাবেন ভাইরাস এবং ম্যালওয়্যার থেকে প্রটেক্টশন, পাবেন ওয়াই ফাই সিকুরিটি স্ক্যান এবং পাসওর্য়াড স্টোরেজ ভল্ট যেখানে আপনার ব্রাউজারের সকল সাইটের পাসওর্য়াডকে সুরক্ষিতভাবে সংরক্ষণ করে রাখতে পারবেন।

এই ফিচারগুলো একজন সাধারণ হোম ইউজারের জন্য যথেষ্ট। নিয়মিত আপডেট ছাড়াও সহজে ব্যবহারযোগ্য ইউজার ইন্টারফেস থাকায় এই অ্যাভাস্ট ফ্রি এন্টিভাইরাসটি অনেকেই ব্যবহার করেন। এন্টিভাইরাসটি ২ গিগাবাইট র‌্যামের পিসিতেও আপনি ব্যবহার করতে পারবেন।

2. Microsoft Security Essentials:

মাইক্রোসফট সিকিউরিটি এসেনশিয়াল নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। যারা এখনো উইন্ডোজ ৭ কিংবা ৮ ব্যবহার করেন তারা এই এন্টিভাইরাসকে আলাদাভাবে ডাউনলোড করে নিতে পারবেন।

কিন্তু যারা উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করেন তাদের জন্য মাইক্রোসফট এই এন্টিভাইরাসকে বিল্ট ইন ভাবে দিয়ে দিয়েছে এবং এর নাম পরিবর্তন করে উইন্ডোজ ডিফেন্ডার রাখা হলেও সম্প্রতি এর পুনরায় নামকরণ করা হয় Windows Security Center নামে।

তাই বলা চলে যে উইন্ডোজ ১০ ব্যবহার করলে আলাদা করে কোনো ফ্রি এন্টিভাইরাসের প্রয়োজন নেই। তবে আলাদা ইন্টারনেট সিকুরিটি আপনি চাইলে ব্যবহার করতে পারেন। 

উইন্ডোজ ৭ অপারেটিং সিস্টেম এই এন্টিভাইরাসটি Microsoft Security Essentials নামে রয়েছে, উইন্ডোজ ৮ / ৮.১ অপারেটিং সিস্টেমের এন্টিভাইরাসটি রয়েছে Windows Defender নামে এবং উইন্ডোজ ১০ এর ২০১৮ এপ্রিল আপডেট থেকে এন্টিভাইরাসটি উইন্ডোজ সিকুরিটি সেন্টার নামে রয়েছে।

উইন্ডোজ ৭ ও ৮/৮.১ অপারেটিং সিস্টেমে এন্টিভাইরাসকে আলাদাভাবে আপডেট দেওয়ার প্রয়োজন হলেও উইন্ডোজ ১০ য়ে একে আলাদাভাবে আপডেট দেওয়ার প্রয়োজন হয় না।কারণ উইন্ডোজ আপডেটের সাথেই এই এন্টিভাইরাসের ডেফিনেশন ও ইঞ্জিণ আপডেট হয়ে থাকে।

কম্পিউটারের হার্ডওয়ার এর সমস্যা এর সমাধান

How to keep PC virus Free

কম্পিউটারের হার্ডওয়্যার ও সফ্‌টওয়ার সমস্যার সমাধান পার্ট-৫

Comments (No)

Leave a Reply