১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া

১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া 1

১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া বিভিন্ন ব্যবসার আইডিয়ার মধ্যে ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া অন্যতম। আপনি যদি ভাল কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনি যথেষ্ট লাভবান হবেন। আর যদি মোটামুটি পরিচিত কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তাহলে আপনাকে মার্কেটিং এর জন্য অনেক শ্রম দিতে হবে। তবে এসব কোম্পানি আপনাকে কমিশনও দিবে তুলনামূলক বেশি।

১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া 2

ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া নিয়ে লেখার উদ্দেশ্য হলো যারা ডিলারশিপ ব্যবসা শুরু করতে চাচ্ছেন কিন্তু কোন ধরণের পণ্য বা কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন তা বুঝতে পারছেন না তাদেরকে কিছু আইডিয়া দেওয়া।

ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া

১. ইলেক্ট্রনিকস পণ্যের ডিলারশিপ

ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়ার মধ্যে ইলেক্ট্রনিকস পণ্যের ডিলারশিপ অন্যতম। এটি একটি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসা। আপনি চাইলে আপনার এলাকায় যে কোন ইলেক্ট্রনিকস কোম্পানির ডিলারশিপ নিতে পারেন। যেমন ওয়ালটনের ডিলারশিপ, সনি, মার্সেল, বেস্ট ইলেক্ট্রনিকস, পেনাসনিক, হিতাচি, কনকা, এলজি ইত্যাদি কোম্পানি থেকে ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা করতে পারেন।

আপনি চাইলে একাধিক কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়েও ব্যবসা করতে পারবেন। এতে আপনার সুবিধা হবে। যদি কোন মৌসুমে একটি কোম্পানির ইলেক্ট্রনিকস পণ্য না চলে তাহলে অন্য কোম্পানির পণ্য বিক্রি করে ব্যবসা চলমান রাখতে পারবেন।

২.সারের ডিলারশিপ

যে কোন ফসলের মৌসুমের শুরুতে সারের চাহিদা অনেক বেড়ে যায়। এসময় প্রচুর সার বিক্রি হয়। আর বর্তমানে কৃষি বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব উন্নয়নের ফলে সারা বছরই কোন না কোন ফসলের চাষ হয়। এজন্য সারের চাহিদাও সারা বছর জুড়ে থাকে। তাই আপনি সারের ডিলারশিপ নিতে পারেন। সারের ডিলারশিপ ব্যবসা শহরের যেয়ে গ্রামে বেশি লাভজনক কারণ গ্রামে সারের মূল গ্রাহকদের অবস্থান।

৩. প্রসাধনী পণ্যের ডিলারশিপ

মানুষের জীবন যাত্রার মান যত উন্নত হচ্ছে তত বেশি প্রসাধনী সামগ্রীর ব্যবহার বাড়ছে। বিভিন্ন ধরণের সুগন্ধির ব্যবহার বাড়ছে। মুখের ত্বক এবং চুলের সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে বিভিন্ন কোম্পানির হরেক রকমের প্রসাধনী।

দেশি বিদেশি বিভিন্ন কোম্পানি বাংলাদেশে প্রসাধনী পণ্যের ব্যবসা করছে।আপনি চাইলে দেশি বা বিদেশি কোন কোম্পানির ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারে। বিখ্যাত কোম্পানির ডিলারশিপ নিলে আপনার মার্কেটিং এর ঝামেলা কম হবে কিন্তু অখ্যাত কোম্পানির ডিলারশিপ নিলে আপনাকে বিভিন্ন দোকানে গিয়ে মার্কেটিং করে পণ্য বিক্রি বাড়াতে হবে।

৪. গাড়ির পার্টসের ডিলারশিপ

আমাদের দেশে গাড়ির ব্যবহার ক্রমেই বেড়ে চলেছে। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাহেবের তথ্য মতে আমাদের দেশে নিবন্ধিত মোট যানবাহনের সংখ্যা ৩৪ লাখ ৯৮ হাজার ৬২০টি। তাহলে বুঝতেই পারছেন গাড়ির পার্টসের কি পরিমাণ চাহিদা এদেশে।

যে কোন একটা গাড়ির পার্টসের কোম্পানির সাথে যোগাযোগ করে শুরু করে দিতে পারেন গাড়ির পার্টসের ব্যবসা। হোন্ডা, টয়োটা, নিশান ও হুন্দাই ইত্যাদি কোম্পানির গাড়ির চাহিদা বাংলাদেশে বেশি তাই এসব কোম্পানির গাড়ির পার্টসের ডিলারশিপ নিতে পারেন। ডিলার কমিশন খুব ভাল পাবেন।

৫. মোটর সাইকেলের ডিলারশিপ

১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া 3

ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া হিসেবে মোটর সাইকেলের ডিলারশিপ অনেক লাভজনক। কারণ একদিকে আপনি ভাল ডিলার কমিশন পাবেন অন্যদিকে বিক্রির টার্গেট পূরণ করতে পারলে বিভিন্ন ধরণের ইনসেন্টিভ, বিদেশে ট্যুর দেওয়া ইত্যাদি সুবিধা পাবেন।

আপনার যদি রাস্তার পাঁশে মোটামুটি আয়তনের একটি শো-রুম থাকে তাহলেই আপনি মোটর সাইকেলের ডিলারশিপ নিতে পারেন। অনেক কোম্পানিই বাংলাদেশে মোটর সাইকেলের ব্যবসা করে যেমন – হোন্ডা, হিরো, ইয়ামাহা, বাজাজ, টিভিএস ইত্যাদি কোম্পানি। আপনি এসব কোম্পানি থেকে ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

৬. বেভারেজ ডিলারশিপ

ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া গুলোর মধ্যে বেভারেজ ডিলারশিপ অনেক জনপ্রিয়। কারণ বেভারেজ এমন একটি পণ্য যার বিরাট চাহিদা রয়েছে এদেশে। কোকাকোলা, পেপসি, সেভেনআপ, প্রাণ ফ্রুটো, ক্লেমন, ফিজ আপ, টাইগার, স্পিডসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের বিভিন্ন ধরণের বেভারেজ আমাদের দেশে খুব বেশি চলে। এসব কোম্পানি থেকে ডিলার কমিশন পাবেন ভাল। প্রায় ৪%-৫% কমিশন পেতে পারেন।

আপনার এলাকায় যদি এসব কোম্পানির কোন ডিলার না থাকে তাহলে আপনি দেরি না করে বেভারেজ ডিলারশিপের জন্য আবেদন করে ফেলুন।

৭. নির্মাণ সামগ্রীর ডিলারশিপ

দেশে নির্মাণ সামগ্রীর ব্যবসা খুব জমজমাট। বর্তমানে প্রতিটি জেলা উপজেলায় বিভিন্ন ধরণের উন্নয়ন প্রকল্প চলমান যেমন বিভিন্ন রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কালভার্ট ইত্যাদি মেরামত এবং তৈরি করা হচ্ছে। এছাড়া মানুষের অর্থনৈতিক সক্ষমতা বেড়ে যাওয়া এবং আবাসন কোম্পানির কারণে দেশে প্রচুর বাড়ি তৈরি হচ্ছে। এসব কারণে নির্মাণ সামগ্রীর চাহিদা দেশে তুঙ্গে।

তাই এই চাহিদাকে কেন্দ্র করে আবুল খায়ের গ্রুপ, পিএইচপি, বিএসআরএম, জিপিএইচ ইত্যাদি কোম্পানি নির্মাণ সামগ্রী তৈরি করার জন্য বিশাল অঙ্কের বিনিয়োগ করছে। তাই আপনি এসব কোম্পানি থেকে রড এবং সিমেন্টের ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করে দিতে পারেন।

৮. প্লাস্টিক সামগ্রীর ডিলারশিপ

প্লাস্টিক সামগ্রীর ব্যবহার দেশে বেড়েই চলেছে। বর্তমানে টেবিল, চেয়ার, জগ, মগ, বালতি, ঝুড়ি ইত্যাদি বিভিন্ন ধরণের প্লাস্টিক পণ্য পাওয়া যাচ্ছে। এসব পণ্য দামে তুলনামূলক সস্তা এবং টেকসই তাই মানুষ এসব পণ্য প্রচুর ব্যবহার করছে।

আমাদের দেশে প্লাস্টিক পণ্যের বড় প্রস্তুতকারক হচ্ছে আরএফএল। এছারাও বেঙ্গল প্লাস্টিক, গাজী ট্যাংক, সানওয়াহ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড, আজাদ ইন্ডাস্ট্রিজ, প্যাক পলিমার, মডার্ন প্লাস্টিক অ্যান্ড পিভিসি পাইপসহ বিভিন্ন কোম্পানি আছে যারা প্লাস্টিক পণ্য তৈরি করে থাকে। আপনি চাইলে এসব কোম্পানি থেকে ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন। এসব পণ্যের ডিলার কমিশন যথেষ্ট ভাল।

৯. ঔষধের ডিলারশিপ

১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া 4

ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া হিসেবে ঔষধের ডিলারশিপ ব্যবসা খুব লাভজনক। এখানে আপনি ভাল ডিলার কমিশন পাবেন। তবে কোম্পানি ভেদে এই কমিশন কম বেশি হয়ে থাকে।

আমাদের দেশে অসংখ্য ঔষধ কোম্পানি আছে। এর মধ্যে কিছু আছে নামীদামী প্রতিষ্ঠান যেগুলোকে সবাই চেনে। তাই সেসব প্রতিষ্ঠানের ডিলারশিপ পাওয়া চেলেঞ্জিং। তবে যেগুলো খুব বেশি পরিচিত না সেগুলোর ডিলারশিপ একটু চেষ্টা করলেই পাওয়া যায়।

১০. ষ্টেশনারী পণ্যের ডিলারশিপ

ষ্টেশনারী আইটেমের মধ্যে রয়েছে জ্যামিতি বক্স, ক্যালকুলেটর, খাতা, কলম, পেন্সিল, পেন্সিল বক্স, পেন্সিল ব্যাগ, ইরেজার, পেন্সিল কাটার, হাইলাইটার পেন, ফাইল অর্গানাইজার,স্ট্যাপলার মেশিন, ডকুমেন্ট ক্ল্যাম্প, পেন হোল্ডার,স্টিকি নোট, মার্কার পেন, হোল পাঞ্চ মেশিন, পাঞ্চ ফাইল, ফটোকপি ম্যাটেরিয়ালস, প্রিন্টার উপাদান, পেপার কাটার, টেপ, গাম, গ্লু ইত্যাদি।

আপনি ইচ্ছে করলে ষ্টেশনারী আইটেমের ডিলারশিপ নিতে পারেন। যেহেতু এসব পণ্যের চাহিদা সারা বছর থাকে তাই বিক্রি নিয়ে চিন্তা করতে হবে না।

১১. আসবাবপত্রের ডিলারশিপ

আসবাবপত্র এমন একটি পণ্য যা আপনি সবসময় বিক্রি করতে পারবেন না। কিন্তু ক্রেতা কম হলেও এগুলোতে লাভ বা ডিলার কমিশন বেশি। যেহেতু এগুলো দামী পণ্য তাই আপনি যদি ৪%-৫% কমিশন পান তাহলেও অন্যান্য পণ্যের তুলনায় আয় অনেক বেশি। ৫০ হাজার টাকার একটি খাট বিক্রি করতে পারলেই আপনি প্রায় ২৫০০ টাকা কমিশন পাবেন।

আমাদের দেশে আখতার, হাতিল, পারটেক্স, নাভানা, ব্রাদার্সসহ বিভিন্ন কোম্পানি আসবাবপত্রের ব্যবসা করছে। আপনি এসব কোন একটা কোম্পানি থেকে ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

১২. মিনারেল পানির ডিলারশিপ ব্যবসা

মিনারেল পানির চাহিদা দ্রুত বৃদ্ধি পাচ্ছে। মানুষ এখন বোতলজাত পানি ছাড়া খোলা পানি খেতে চায় না। রেস্তোরাঁ, পার্টি সেন্টার, হাসপাতালসহ বিভিন্ন যায়গায় মিনারেল পানির বোতলের ব্যাপক চাহিদা। এজন্য দেশে বিভিন্ন কোম্পানি বোতল মিনারেল পানির ব্যবসায় বিনিয়োগ করছে।
বর্তমানে মাম, ফ্রেশ, কিনলে, স্প্যা, মুক্তা, প্রাণসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের মিনারেল পানির বোতল বাজারে পাওয়া যায়। আপনি এসব ব্র্যান্ডের ডিলারশিপ নিয়ে ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

১৫ টি লাভজনক ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া 5

কিছু জনপ্রিয় কোম্পানির ডিলারশিপ ব্যবসা

১৩. তীর কোম্পানির ডিলারশিপ

বাজারে যে কয়েকটি কোম্পানির সয়াবিন তেল খুব ভাল চলে তাদের মধ্যে তীর কোম্পানি অন্যতম। ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া হিসেবে তীর কোম্পানির ডিলারশিপ রাখার উদ্দেশ্য হচ্ছে এসব জনপ্রিয় কোম্পানির ডিলারশিপ সম্পর্কে আপনারদেরকে জানানো।

আপনি যদি তীর কোম্পানির সয়াবিন তেলের ডিলারশিপ নিতে পারেন তাহলে আপনাকে মার্কেটিং এর জন্য কোন চিন্তা করতে হবে না। আপনি শুধু পণ্য আনবেন আর বিক্রি করবেন।

১৪. ইউনিলিভারের ডিলারশিপ

ইউনিলিভারের ডিলারশিপ বাংলাদেশের মধ্যে খুবই লোভনীয়। যারা ডিলারশিপ ব্যবসা করেন তারা প্রায় সবাই এক বাক্যে এই কথা বলবেন। কিন্তু ইউনিলিভারের ডিলারশিপ পাওয়া খুব কঠিন কারণ ইতিমধ্যে প্রায় সব এলাকায় ইউনিলিভারের ডিলার রয়েছে।

তাই যদি কোন এলাকায় কোন ডিলার যদি সেচ্ছায় ডিলারশিপ ছেড়ে দেয় তাহলে আপনি ইউনিলিভারের ডিলারশিপ পেতে পারেন।

১৫. প্রানের ডিলারশিপ

প্রাণ কোম্পানি বাংলাদেশের মধ্যে অন্যতম জনপ্রিয় কোম্পানি। এদের রয়েছে বিশাল প্রোডাক্ট লাইন। কাচ্চি বিরিয়ানি মসলা, টক দই, প্রান অরেঞ্জ জেলি, প্রান আম জুস, প্রান গুঁড়া মসলা, প্রান চকলেট দুধ, প্রান টমেটো হট সস, প্রান টোস্ট, প্রান ফ্রুটো, প্রান সরিষার তেলসহ বিভিন্ন ধরণের পণ্য তারা বাজারজাত করে থাকে। প্রানের সব পণ্য বাজারে খুব ভাল চলে। তাই আপনি প্রানের ডিলারশিপের জন্য চেষ্টা করতে পারেন।

পরিশেষে

আশা করি এসব ডিলারশিপ ব্যবসার আইডিয়া থেকে আপনি বিভিন্ন পণ্যের ডিলারশিপ সম্পর্কে ভাল একটি ধারণা পেয়েছেন। এখন এই ধারণাকে বাস্তবে রুপ দিতে আপনাকে বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধির সাথে যোগাযোগ করতে হবে। তাদের মাধ্যমে নির্দিষ্ট একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে কোম্পানির ডিলারশিপ নিতে হবে।

Comments (No)

Leave a Reply

এই সাইটের কোন লেখা কপি করা সম্পুর্ন নিষেধ