এই একটা পোস্ট হতে পারে আপনার জীবন বদলে দেবার মূলমন্ত্র। পোস্টটি পড়লে হয়তো চাকুরীর চিন্তা মাথা থেকে উড়ে যাবে।

আসসালামু আলাইকুম।

আজ এমন একটা বিষয় নিয়ে আমি আলোচনা করবো যা আপনারা সবাই জানেন, করেন। কিন্তু কেউ কোনদিন ভাবেন নি যে এটা এমন একটা জিনিস যা বদলে দিতে পারে আপনার জীবন। আমার আজকের আলোচনার বিষয় “এফিলিয়েট মার্কেটিং।”

এফিলিয়েট মার্কেটিং কি?

সহজ কথায় ডিলারশীপ। আসুন বুঝিয়ে বলি। নিচের ছবিটি লক্ষ করুন।

এই একটা পোস্ট হতে পারে আপনার জীবন বদলে দেবার মূলমন্ত্র। পোস্টটি পড়লে হয়তো চাকুরীর চিন্তা মাথা থেকে উড়ে যাবে। 4

ধরেন আপনি একজন দোকানদার। আপনি একটা অপরিচিত সাবান কোম্পানির সাথে চুক্তি করলেন যে আপনি তাদের সেই অপরিচিত সাবানটি বাজারে চালিয়ে দিবেন বিনিময়ে সাবান থেকে যা লাভ হবে তার ১০% আপনাকে দিতে হবে। কোম্পানি আপনার চুক্তিতে রাজি হলো। আপনি পেয়ে গেলে আপনার লাভের অংশ। তাও আবার কোনো পুঁজি ছাড়া। হ্যাঁ, এটাই এফিলিয়েট মার্কেটিং। আপনি অনলাইনে কিছু ওয়েবসাইটে এই এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন। ধরেন আপনি এমাজনের সাথে এই এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে চান। তাহলে আপনাকে আগে তাদের সাথে একটা নির্দিষ্ট লিনকের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। তারপর তারা আপনাকে একটা কোড দিবে। আপনি যেই পন্য নিয়ে বিক্রি করিয়ে দিতে চান সেই পন্যের একটা নির্দিষ্ট লিনক দিবে। আপনি তা শেয়ার করবেন। আপনার লিনকে ক্লিক করে যারা সেই পন্য কিনবে আপনি সেই পন্য থেকে কিছু কমিশন পাবেন। সোজা কথা, আপনি এখানে একজন বিনা পুঁজিতে দোকানদারের ভূমিকা পালন করবেন। যেখানে সব পন্য আপনার। বিক্রি করতে পারলে আপনার লাভ। কোম্পানির কত লাভ হলো সেটা আমাদের দেখার বিষয় না। তো ক্লিয়ার??? এটাকেই বলে এফিলিয়েট মার্কেটিং।

কোথায়, কিভাবে এটা শুরু করবেন?

ভালো প্রশ্ন। উত্তর টা শুনলেও অবাক হবেন আমরা এমাজনের নাম সবাই শুনেছি। কেউ কেউ সেখান থেকে শপিং ও করেছি। সেই এমাজনই এফিলিয়েট মার্কেটিং সাপোর্ট করে। কিন্তু সমস্যা একটা। নিজের ওয়েবসাইট ছাড়া এমাজনে এফিলিয়েট একাউন্ট খোলা যায় না বা মার্কেটিং করা যায় না। তো কোথায় করবেন?? চিন্তা নেই। এমন একটা ওয়েবসাইটের সাথে আজ আপনাদের পরিচয় করিয়ে দিবো যেটা ২০০২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এদের মূল কাজ ওয়ার্ডপ্রেস থিম, প্লাগিন, ব্রাউজার এক্সটেনশন, ই-কমার্স থিম ইত্যাদি বিক্রি করা। বিশ্বের সবচেয়ে বড় থিম বিক্রয় কোম্পানি এটি। আগে এখানে রেজিস্ট্রেশন করে নিন। তারপর আমি জানিয়ে দিচ্ছি কি করতে হবে।

এই একটা পোস্ট হতে পারে আপনার জীবন বদলে দেবার মূলমন্ত্র। পোস্টটি পড়লে হয়তো চাকুরীর চিন্তা মাথা থেকে উড়ে যাবে। 5

রেজিস্ট্রেশন লিনকঃএখানে রেজিস্ট্রেশন করুন

এই সাইটের সম্পর্কে একটু জেনে নিন।

এই একটা পোস্ট হতে পারে আপনার জীবন বদলে দেবার মূলমন্ত্র। পোস্টটি পড়লে হয়তো চাকুরীর চিন্তা মাথা থেকে উড়ে যাবে। 6

২০১৬ সালে তারা ১, ৫৮০,৯২৭ ডলার পেইড করেছে! বিশ্বাস না হলে গুগল মামাকে জিজ্ঞেস করতে পারেন। আপনার কাজ হলো এদের থিম বিক্রি করিয়ে দেয়া। চিন্তায় পরলেন? ভাবছেন থিম বিক্রি করবেন কই? চিন্তার বিষয় এটা না। বিষয় হলো আপনি পারবেন কিনা। আপনারা অনেক ওয়েবসাইটে দেখেন থিম নিয়ে রিভিও দেয়, কেউ বলে এই থিম ভালো, কেউ বলে ওইটা ভালো। এই রকম কয়টা বিদেশী ফোরাম সাইটে রেজিস্ট্রেশন করে নেন। যেখানে থিম নিয়ে কিছু লিখলে মানুষ পড়ে, কমেন্ট করে। প্রতিদিন লাখ, লাখ থিম বিক্রি হয়। বিশ্বাস না হলে google.com সার্চ করে দেখতে পারেন। তারা যদি পারে আপনি পারবেন না কেন? সাইটে ফোরাম লিখেন, ফেসবুকে লিনক শেয়ার করেন। কেউ থিম নিয়ে জানতে চাইলে তার পোস্টে কমেন্ট করেন। মোট কথা, যত বেশী একটিভ থাকবেন আপনার সেলও তত বেশীই হবে। নিজেই চিন্তা করে দেখেন, লাখ, লাখ থিমের মধ্যে আপনি যদি প্রতিদিন ৫ টা থিমও বিক্রি করতে পারেন তাহলে ৩০ থেকে ৫০ ডলার পর্যন্ত ইনকাম হতে পারে। আর এই একটা জিনিস শিখিয়ে দিয়েই অনেক কোম্পানি ১৫ হাজার টাকা নেয়। আর টাইটেলটা হয় এমন, অনলাইনে টাকা কামান ঘরে বসেই! আর আপনারাও ১৫ হাজার টাকা দিয়ে শেটা শিক্ষতে চলে যান। যাই হোক, আরো কিছু জানার থাকলে আমাকে সরাসরি মেইল করতে পারেন।

masudsikdar85@yahoo.com

Comments (No)

Leave a Reply

এই সাইটের কোন লেখা কপি করা সম্পুর্ন নিষেধ